• Sun. Jul ২৫, ২০২১

আমিওপারি ডট কম

ইতালি,ইউরোপের ভিসা,ইম্মিগ্রেসন,স্টুডেন্ট ভিসা,ইউরোপে উচ্চ শিক্ষা

ঘুমালেন ছেলে হয়ে, উঠলেন মেয়ে হয়ে!!!

Byadilzaman

Nov 24, 2012

বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলার গোবিন্দপুর ইউনিয়নের বনতেঁতুলিয়া মণ্ডলপাড়া গ্রামের ১৮ বছরের যুবক লালচান মিয়া শারীরিক সব অঙ্গপ্রত্যঙ্গ পরিবর্তন হয়ে সম্পূর্ণ যুবতীতে পরিণত হয়েছে। গত বুধবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। লালচানের বাড়িতে গেলে সে জানায়, গত রাতে প্রতিদিনের মতো খাওয়া- দাওয়া করে ঘরে ঘুমিয়ে পড়ে। রাত ১০টা থেকে তার শরীরে শিহরণ শুরু হয় এবং একটি ব্যথা অনুভব করে। প্রায় দুই ঘণ্টা পর সে বুকে হাত দিয়ে দেখে তার স্তন দুটি অস্বাভাবিকভাবে বড় হয়ে নারীদের স্তনের মতো হয়েছে।

পরে সে তার গোপনাঙ্গে হাত দিয়ে দেখে তার গোপনাঙ্গটি শরীরের ভিতর দেবে গিয়ে নারী গোপনাঙ্গের মতো রূপ নিয়েছে। সকাল বেলা সে তার ভাবিকে ঘরে ডাকে এবং তার শারীরিক সব অঙ্গ দেখায়। ভাবি খালেদা আক্তার এ ঘটনা দেখে ও হাত দিয়ে নাড়াচাড়া করে বিষয়টি নিশ্চিত হয় এবং পরিবারের অন্য সদস্যদের বিষয়টি জানান।

এ ঘটনা প্রথমে পরিবার, পরে গ্রামবাসী এবং বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে। এ ধরনের আশ্চর্য ঘটনা দেখার জন্য হাজার হাজার মানুষজন লালচানের বাড়িতে ভিড় করে। তার পিতা মো. আক্কাস আলী মণ্ডল ও মা জাহানারা বেগম জানান, পুত্র লালচান একজন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী। বেশ কিছুদিন যাবৎ তার দাড়ি মোচ ওঠা বন্ধ হয়ে যায় এবং চেহারার মধ্যে একটি মেয়েলি স্বভাব লক্ষ্য করা যায়। গত বুধবার সারাদিন সে নিয়মিত কাজকর্ম করেছে। কিন্তু রাতে এ ধরনের আকস্মিক ঘটনা ঘটায় তারা বিস্মিত হয়ে পড়েন। আক্কাস আলীর ৩ ছেলে ও ২ মেয়ে আছে।

শারীরিক অঙ্গ এরকমভাবে দ্রুততার সঙ্গে পরিবর্তনের ঘটনা এলাকায় এটিই প্রথম। তবে এ বিষয়ে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল  কলেজের ডাক্তার ইলিয়াছ আলী, ডা. নির্মলেন্দু চৌধুরী ও ডা. মিন্টু জানান, বিষয়টি হরমনজনিত। হরমনের কারণে অনেক সময় এই রকম দৈহিক পরিবর্তন হওয়া অস্বাভাবিক কিছু নয়।

[[ আপনি জানেন কি? আমাদের সাইটে আপনিও পারবেন আপনার নিজের লেখা জমা দেওয়ার মাধ্যমে আপনার বা আপনার এলাকার খবর তুলে ধরতে জানতে এখানে ক্লিক করুণ তুলে ধরুন  নিজে জানুন এবং অন্যকে জানান। ]]

 

*****লেখাটি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুণ!*****

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *