• Sun. Sep ১৯, ২০২১

আমিওপারি ডট কম

ইতালি,ইউরোপের ভিসা,ইম্মিগ্রেসন,স্টুডেন্ট ভিসা,ইউরোপে উচ্চ শিক্ষা

এইচএসসি’তে উত্তীর্ণ মেধাবি শিক্ষার্থীদের জন্যে ডাচ্-বাংলা ব্যাংক দেবে ১০২ কোটি টাকার বৃত্তি! বিস্তারিত পড়ুন

ByLesar

Aug 19, 2014

২০১৪ সালের এইচএসসি তে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থী ভাইয়া ও আপুরা, কেমন আছো তোমরা? আশা করি এডমিশন টেস্ট এর প্রস্তুতি নিয়ে ব্যস্ত থাকলেও ভালো এবং সুস্থ্য আছো। এখন তোমাদের সুস্থ্য থাকাটা একটু বেশিই জরুরী। যাই হোক আজকে তোমাদের জন্যে একটা সুখবর নিয়ে এসেছি। লেখার শিরোনাম দেখেই হয়তো বুঝে গেছো আমরা কোন সুখবরের কথা বলছি। তাহলে কথা না বাড়িয়ে শুরু করা যাক।

ডাচ্-বাংলা ব্যাংক তার বাৎসরিক ১০২ কোটি টাকার শিক্ষা বৃত্তির কর্মসূচীর আওতায় দেশের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উচ্চ মাধ্যমিক, স্নাতক ও স্নাতকোত্তর পর্যায়ে অধ্যয়নরত মেধাবী ও আর্থিকভাবে অসচ্ছল ছাত্র-ছাত্রীদেরকে বৃত্তি প্রদান করে আসছে। শেই ধারাবাহিকতায় ১০ম পর্যায়ে ২০১৪ সালের এইচ এস সি/ সমমান পরীক্ষায় উত্তীর্ণ মেধাবি শিক্ষার্থীদেরকে বৃত্তি প্রদান করবে ডাচ্-বাংলা ব্যাংক। ইতিমধ্যে বৃত্তি পেতে আগ্রহীদেরকে আবেদন পত্র জমা দেওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে ডাচ্-বাংলা ব্যাংক এর পক্ষ থেকে।

বৃত্তির পরিমাণ ও সময়কালঃ

শিক্ষার স্তরঃ স্নাতক

সময়কালঃ ৩-৫ বছর

মাশিক বৃত্তিঃ ২,৫০০ টাকা

বার্ষিক অনুদানঃ

পাঠ্য উপকরণের জন্য এককালীন ৫,০০০ টাকা ও

পোশাক পরিচ্ছদের জন্য ১,০০০ টাকা

বৃত্তির জন্যে আবেদনের যোগ্যতাঃ

  • সিটি কর্পোরেশন এলাকার জন্যেঃ ন্যুন্যতম জিপিএ ৪.৮ (চতুর্থ বিষয় ব্যতিত, সকল গ্রুপের জন্য)
  • সিটি কর্পোরেশন এর বাইরের এলাকার  জন্যেঃ ন্যুন্যতম জিপিএ ৪.৫ (চতুর্থ বিষয় ব্যতিত, সকল গ্রুপের জন্য)

আবেদনের নিয়ম ও শর্তাবলীঃ

  • বৃত্তির জন্যে আবেদনপত্র ডাচ্-বাংলা ব্যাংক এর সকল শাখা এবং এই লেখার নিচে দেওয়া ডাউনলোড লিঙ্ক থেকে সংগ্রহ করা যাবে। যেখানে ডাচ্-বাংলা এর শাখা নেই সেই এলাকার আবেদনকারীগণ সাদা কাগজে পূর্ণ জীবন বৃত্তান্ত, পিতা-মাতার পেশা, পরিবারের আয়ের উৎস, যোগাযোগের ঠিকানা ও মোবাইল ফোন নম্বর উল্লেখ পূর্বক আবেদন করতে পারবে। আবেদন পত্রের সাথে S.S.C. ও H.S.C./সমমান পরীক্ষার মার্কশীট/ ট্রান্সক্রীপ্ট, প্রশংসাপত্র, রেজিস্ট্রেশন কার্ড, প্রবেশপত্রের ফটোকপি ও ৩ কপি রঙ্গিন পাসপোর্ট সাইজের ছবি যে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে উত্তীর্ণ হয়েছে সেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান কর্তৃক সত্যায়িত করে দিতে হবে। এছাড়া আবেদনকারীর পিতা ও মাতার ১ কপি করে পাসপোর্ট সাইজের ছবি, জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি এবং আয়ের ২ টি ভিন্ন উৎসঃ

(১) চাকুরীরত পিতা/মাতা অভিভাবকের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা/অন্যান্য ক্ষেত্রে ১ম শ্রেণীর কর্মকর্তা / সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড কমিশনার / ইউপি চেয়ারম্যান

(২) এইচ.এস.সি/সমমান পরীক্ষা যে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে উত্তীর্ণ হয়েছে সেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান কর্তৃক পিতা/মাতা/অভিভাবকের আয়ের প্রত্যায়িত সংযুক্ত করতে হবে।

  • যে সকল ছাত্র-ছাত্রী অন্য কোন উৎস থেকে বৃত্তি পাচ্ছেন, তাঁরা ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের বৃত্তির জন্য বিবেচিত হবে না।
  • সিটি কর্পোরেশন এলাকার বাইরে/গ্রাম অঞ্চলে অবস্থিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে উত্তীর্ণ ছাত্র-ছাত্রীদের জন্যে বৃত্তির শতকরা ৯০ ভাগ নির্ধারিত থাকবে এবং মোট বৃত্তির শতকরা ৫০ ভাগ ছাত্রীদের প্রদান করা হবে।
  • যে সকল ছাত্র-ছাত্রী ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের বৃত্তির জন্য বিবেচিত হবে, তাদেরকে অবশ্যই বর্তমান শিক্ষা বর্ষে যেকোন সরকারী বিশ্ববিদ্যালয়/ কলেজে ভর্তি হতে হবে।
  • যে সকল ছাত্র-ছাত্রী এইচ.এস.সি. পর্যায়ে (এস.এস.সি ফলাফলের ভিত্তিতে) ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের বৃত্তি লাভ করেছে এ বিষয়টি তাদেরকে উপরে উল্লেখ করতে হবে।

আবেদনের সময়সীমাঃ

১৪-০৮-২০১৪ থেকে ১৬-০৯-২০১৪ পর্যন্ত।

আবেদন ফরমঃ

আবেদন ফরম ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক কর। 

*****লেখাটি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুণ!*****

Lesar

আমিওপারি নিয়ে আপনাদের সেবায় নিয়োজিত একজন সাধারণ মানুষ। যদি কোন বিশেষ প্রয়োজন হয় তাহলে আমাকে ফেসবুকে পাবেন এই লিঙ্কে https://www.facebook.com/lesar.hm

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *