• Sun. Oct ১৭, ২০২১

আমিওপারি ডট কম

ইতালি,ইউরোপের ভিসা,ইম্মিগ্রেসন,স্টুডেন্ট ভিসা,ইউরোপে উচ্চ শিক্ষা

নারীর জরায়ু ক্যান্সার বাঁ পাপ টেস্ট সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য এবং কিভাবে ইতালি ও ইউরোপে এটা ফ্রী করাবেন।

Bytahmina yasmin shoshi

Jul 30, 2014

নারীর জরায়ু ক্যান্সার ও পাপ টেস্ট (cervical cancer)

তাহমিনা ইয়াসমিন শশী, ইতালির ভেনিস থেকেঃ এইডস, যক্ষা বা ম্যালেরিয়া, এই তিন রোগে প্রতিবছর যতলোকের মৃত্যু হয় তার চেয়ে বেশী মানুষের মৃত্যু হয় ক্যান্সারে। ক্যান্সারে মোট মৃতের মধ্যে বড় একটা অংশ নারী। অধিকাংশ নারীর মৃত্যু হয় সার্ভিকেল বা জরায়ু ক্যান্সারে। আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞান নারীর জরায়ু ক্যান্সার প্রতিরোধ এখন বহুলাংশে সহজ করে দিয়েছে। প্রয়োজন শুধু সচেতন হওয়া। সাথে সদিচ্ছা ও সদ্দোগ।

জরায়ু মুখের ক্যান্সার কি?

বিশ্বজুড়ে মোট ক্যান্সারের পাঁচ ভাগের একভাগের কারন হলো ক্রনিক সংক্রমন। যেমন HPV (HUMAN PAPILLOMA VIRUS)। এই ভাইরাসের কারনে নারীর জরায়ু গ্রীবায় টিউমার হতে পারে। টিউমার থেকে ক্যান্সার। সার্ভেক্র বা জরায়ু মুখ নারীদের প্রজনন তন্ত্রের একটি গুরুত্বপূর্ন অংশ। হিউম্যান প্যাপিলোমা ভাইরাস (এইচ,পি,ভি) এর দীর্ঘমেয়াদী সংক্রমন জরায়ু মুখে ক্যান্সারের প্রধান কারন। শতকরা ৮০% নারীর জীবনে কোনও না কোনো সময় (ঐচঠ)দ্বারা আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

কি কি কারনে এইচ,পি,ভি ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুকি থাকে?

এইচ,পি,ভি’র জীবানু মূলত দৈহিক মিলন থেকে সংক্রমিত হয়। বহুগামিতা, বহুসন্তান ধারন, বাল্যবিবাহ, অতিরিক্ত ধুমপান, মদ্যপান, অপরিষ্কার অপরিচ্ছন্নতার কারনে এইচ,পি,ভি ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুকি থাকে।

এই রোগে  আক্রান্ত নারীর সংখ্যা-

বাংলাদেশে প্রতি বছর এ রোগে আক্রান্ত হয় ১৭,৬৮৬ জন নারী। আর প্রতিবছর যুক্তরাজ্যে আক্রান্ত হয় ৪ দশমিক ৪ মিলিয়ন নারী। ইতালীতে আক্রান্তের মোট সংখ্যা ৩.৫০০। বিশ্বব্যাপী সার্ভিকেল ক্যান্সারে আক্রান্তের সংখ্যা বছরপ্রতি ৪০০.০০০। আক্রান্তদের মধ্যে প্রায় অর্ধেক রোগীর মৃত্যু হয়।

এইচ,পি,ভি ভাইরাস প্রতিরোধের জন্য আবিষ্কৃত হয়েছে ভ্যাক্সিন বা টিকা। যা এই ভাইরাস পতিরোধক হিসেবে কাজ করে। এই ভ্যাক্সিন দিতে হয় মেয়েদের ১৬ থেকে ১৮ বছর বয়সের মধ্যে। আর যারা এই টিকা নিতে পারেনা তাদের জন্য রয়েছে প্রতি ৩ বছর অন্তর পাপ টেস্ট।

পাপ টেস্ট কি?

পাপ টেস্ট হচ্ছে নারীর জরুয়ুর এক ধরনের পরীক্ষা। এর মাধ্যমে মেয়েদের জরায়ু মুখের ক্যান্সার, টিউমার ও বিভিন্ন জাতের ব্যাকটেরিয়া পরীক্ষা করা হয়। এইচ,পি,ভি  ভাইরাসের উপস্থিতি নির্নয় করা হয়।

কোন বয়সে পাপ টেস্ট করা প্রয়োজন?

২৫ থেকে ৬৫ বছর বয়সের মধ্যে যারা আছেন তাদের পাপ টেস্ট করানো জরুরী। প্রতি ২ বছর অন্তর পাপ টেস্ট রিপিট করা উচিৎ।

কোথায় করাবেন পাপ টেস্ট?

পারিবারিক স¦াস্থ্যকেন্দ্রে। যারা ইতালিতে বসবাস করেন তারা কনসুলতরিও দি ফ্যামিলারি অথবা পলিআমবুলাতরিও দেল আজলেতে পরীক্ষা করিয়ে নিতে পারেন। আগে থেকে অ্যাপয়নমেন্ট নিলে আপনার টেস্ট ফ্রি করাতে পারবেন। অথবা আপনার গাইনী ডাক্তারের পরামর্শও নিতে পারেন।

কোন সময়ে পাপ টেস্ট করালে ভালো হয়?

মাসিক হওয়ার ১০ থেকে ২০ দিন আগে।

পাপ টেস্টের আগে কি কি করা যাবেনা?

ভ্যাজিনাল কোনও ক্রিম কিংবা ধৌতকরন কোনো জীবাণু নাশক ব্যবহার করা যাবেনা। টেস্টের ৫ দিন আগে  দৈহিক মিলন না করা যাবে না।

মনে রাখা ভালো পাপ টেস্ট শুধু টিউমার কিংবা ক্যান্সারের জন্য নয়, এই টেস্ট করা হয় জরায়ু মুখের বিভিন্ন ভাইরাস নির্ণয়ের জন্য। যেমন অতিরিক্ত সাদা¯্রাব ভাঙ্গার কারন, অনিয়মিত মাসিক, যোনীপথে চুলকানি, জ্বালাপোড়া, ব্যথা, যৌন মিলনে অনিচ্ছা ইত্যাদি কারনেও পাপ টেস্ট করা হয়।

এখনই সচেতন হোন। আপনার বা আপনার সন্তানের বয়স ১৬ থেকে ১৮ এর মধ্যে হলে এইচ,পি,ভি ভ্যক্সিন নিতে ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করুণ। পাপ টেস্ট বা এইচ,পি,ভি ভ্যক্সিন সম্পর্কে আপনার পরিচিত মানুষদের সচেতন করুন। সব সময় পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকুন। বিশেষ করে দৈহিক মিলনের আগে এবং শেষে এবং মাসিকের পরে খুব ভালো ভাবে পরিষ্কার হন। প্রয়োজনে জীবানু নাশক ব্যবহার করুন। ধুমপান, মদপান থেকে বিরত থাকুন। আপনার যৌনসঙ্গীকেও পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকতে বলুন। কোনো অবস্থাতেই বহুগামীতাকে প্রশ্রয় দিবেন না। অপরিচ্ছনান অবস্থায় যৌনকৃয়ায় মিলিত হবেন না। মনে রাখবেন, আপনার শারিরীক এবং মানষিক সুস্থতার জন্য আপনাকেই সচেতন থাকতে হবে।

এবার আমরা ইতালির রোমে যারা রয়েছে তাদের কিছু ফ্রী নাম্বার দিয়ে দিচ্ছি যেখানে ফোন করে আপনারা সম্পূর্ণ ফ্রীতে এই পরীক্ষাটি করিয়ে নিতে পারেন। এবং এই পরীক্ষা ইতালির অন্যান্য শহর ও ইউরোপের বিভিন্ন দেশেও সম্পূর্ণ ফ্রীতে করানো হয়। কাজেই যারা ইটালিতে রোমের বাইরে এবং যারা ইউরোপে রয়েছেন তারা আপনার নির্দিষ্ট স্বাস্থ্য সচেতন অফিসে গিয়ে বললেই তারা আপনাকে এর বিস্তারিত তথ্য দিয়ে দিবে।

যারা রোমে রয়েছেন তারা নিচের নাম্বারে ফোন করে পরীক্ষার দিন ধার্য করে নিতে পারবেন।

800.543.900 – (dal lunedì al venerdì ore 8.00 -17.30) এই নাম্বারে ফোন করে সরাসরি এপয়েন্টমেন্ট নিতে পারবেন।

800.018.972 – (dal lunedì al venerdì ore 8.00 -17.30) এই নাম্বারে ফোন করলেও তারা আপনার এলাকার নির্দিষ্ট নাম্বার জানিয়ে দিবে।

*****লেখাটি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুণ!*****

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *