ইতালিতে বিবাহবিচ্ছেদ সম্পর্কে বিস্তারিত। কিভাবে করবেন? কতো সময় পর আবার বিয়ে করতে পারবেন ইত্যাদি ইত্যাদি!

প্রিয় আমিওপারির সম্মানিত পাঠক বৃন্দ আশা করি আপনারা মহান সৃষ্টি কর্তার অশেষ রহমতে ভালোই আছেন। বরাবরের মতো আজকেও আমরা অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় নিয়ে আপনাদের সাথে আলোচনা করবো। আমাদের কাছে অনেকেই ইতিমধ্যে এই বিষয়টি নিয়ে জানতে চেয়েছেন। আর তাই, আজ আমরা আপনাদের জন্য এর বিস্তারিত সঠিক কিছু তথ্য নিয়ে উপস্থিত হয়েছি। উল্লেখ্য ইতালি ও ইউরোপ সংক্রান্ত যেকোনো ধরণের প্রশ্ন যদি থাকে বা আপনারা এসব দেশের আইন কানুন থেকে শুরু করে বিভিন্ন ডকুমেন্টস, জীবন যাপন, চলা ফেরা ইত্যাদি বিষয় নিয়ে আপনাদের মনে যেকোনো ধরণের প্রশ্ন সম্পর্কে আপনারা সরাসরি- আমাদের কাছে ইমেইল অথবা ফোন করে জানাতে পারেন। তাহলে আমাদের অভিজ্ঞ টিম আপনাদের সেই প্রশ্নের অনুসন্ধানে নেমে পড়বে। এবং পরিপূর্ণ ও সঠিক উত্তর নিয়ে আপনাদের মাঝে উপস্থিত হবে। শুধু তাই নয় আমাদের সাথে সাথে আপনাদের মধ্যে কেউ যদি থেকে থাকে, যারা অনেক কিছুই ইতিমদ্ধে জানেন!! তারাও চাইলে আমিওপারির মাধ্যমে আপনার অভিজ্ঞটা ও জানা তথ্য গুলো অন্যের সাথে শেয়ার করতে পারেন। মনে রাখবেন আপনি একটি বিষয় জানেন। এবং সেই বিষয়টি অন্যের সাথে শেয়ার করার মাধ্যমে আপনার কোন ক্ষতি হবে না। বরণ আপনার সাথে সাথে আমাদের তথা আমাদের দেশের মানুষের অনেক উপকার হবে। এবং সেই মানুষটির মধ্যে আপনার পরিবারের অথবা পছন্দের একজনও হতে পারে। আর এই দেশ ও দেশের মানুষ গুলো কিন্তু আপনি, আমি ও আমরা মিলেই।কাজেই আপনারাও আমাদের সাথে সাথে এগিয়ে আসুন মানুষের উপকারে। যাক অনেক বক বক করে ফেললাম, এবার কাজের কথায় আসি।

ইতালিতে বর্তমানে দিন দিন বেড়েই চলেছে প্রবাসীদের পরিবার নিয়ে আসার বিষয়টি। কেননা বিগত কয়েক বছর ধরে ইতালিয়ান সরকারের অবৈধদের বৈধ করার আইনের ঘোষণার ফলে, অনেকেই বৈধ হতে পেরেছেন। এবং তাদের সকলেই কিন্তু বৈধ হওয়ার পরপরি তার স্ত্রী-সন্তান নিয়ে আসছেন ইতালিতে। আর তার উপর ভিত্তি করেই বর্তমানে ইতালিতেও প্রবাসীদের বিবাহ বিচ্ছেদ এর ঘটনা ঘটতে দেখা যাচ্ছে অহরহ। কিন্তু দেশের বাইরে ইউরোপের মতো একটি অধর্মীয় দেশে বিবাহ বিচ্ছেদ নিয়ে অনেকেরই তেমন কোন ধারণা নেই। আর তাই আমাদের পড়তে হয় নানা ধরণের সমস্যায়। কাজেই আজ আমরা জানবো ইতালিতে স্বামী/স্ত্রী নিয়ে আসার পর যদি ডিভোর্স এর প্রয়োজন হয় তাহলে কিভাবে কি করতে হবে?

বন্ধুরা আসলে ডিভোর্স এর কথা বলতে গেলে এখানে অনেক গুলো বিষয় রয়েছে যা আপনাদের লিখে শেষ করা যাবেনা। আর তাই আমরা আপনাদের কাছে শুধুমাত্র গুরুত্বপূর্ণ ও আপনাদের জন্য আমাদের কিছু টিপস নিয়ে এখানে আলোচনা করছি। এবং আপনারা ভালো করে যাতে বুঝতে পারেন, সেই বিষয়ে লক্ষ্য করে আমরা নিন্মে কিছু বিষয় প্রশ্ন আকারে তুলে ধরছি। যার উত্তরও আমরা দিয়ে দিচ্ছি। তাহলেই আপনারা খুব সহজে বিষয়টি বুঝতে পারবেন।

প্রশ্নঃ ভাই আমি ইতালিতে আমার স্বামীর কাছে ডিভোর্স নিতে চাচ্ছি, এখন আমার কি করতে হবে?

উত্তরঃ সংসার জীবনে অতিস্ত হয়ে ইতালিতে আপনি যদি আপনার স্বামীর/স্ত্রীর সাথে বিবাহ বিচ্ছেদ করাতে চান!! তাহলে আপনাকে যা যা করতে হবে?

যদি আপনি ইতালিতে এই বিষয়টি সম্পূর্ণ করাতে চান, তাহলে আপনাকে একজন ইতালিয়ান উকিল দিয়ে এই কাজটি করাতে হবে। এবং উকিল দ্বারা আদালতে আবেদন করার পর আদালত আপনাদের সেপারেসন তথা দুজনের আলাদা করে থাকার বিষয়টি অনেক দ্রুত সম্পন্ন করলেও কিন্তু সম্পূর্ণ ভাবে ডিভোর্স তথা বিবাহ বিচ্ছেদ করাতে মোট সময় নিবে ৩ বছর। এবং এই তিন বছর আগে আপনি ইতালিতে ডিভোর্স সার্টিফিকেট সংগ্রহ করতে পারবেন না। তেমনি এই তিন বছরের মধ্যে দ্বিতীয় বিয়ের কথা স্বপ্নেও চিন্তা করতে পারবেন না। কারন ইতালির নিয়ম অনুযায়ী ইতালিতে বিয়ের পর বিচ্ছেদ করাতে চাইলে টানা ৩ বছর পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়।

প্রশ্নঃ অনেকের মনে হয়তো প্রশ্ন জাগতে পারে কেন ইতালিতে ডিভোর্স নিতে চাইলে ৩ বছর পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে?

উত্তরঃ ইতালিতে আমাদের দেশের মতো বাল্য বিবাহ যেমন নেই। তেমনি এখানে পরিবারবর্গ বা বাবা/মা জোড় করে চাইলেও তাদের সন্তানদের বিয়ে করাতে পারে না। এখানে প্রতিটি বিয়েই একে অপরের সম্মতি নিয়ে এবং পরস্পরে ভালোবেসেই বিয়ে সম্পন্ন করে থাকে। এমন কি এরা বিয়ের আগে প্রয়োজনে বছরের পর বছর বিয়ে ছাড়াই একসাথে বসবাস করে। এবং এক পর্যায়ে যখন দুজনের মধ্যে ভালো একটি সূসম্পর্কের সৃষ্টি হয়, ঠিক তখনি তারা বিয়ের পিঁড়িতে বসে বা বিয়ে করে। তার মানে এখানে আমরা একটি বিষয় বুঝতে পারলাম যে, ইতালিতে প্রতিটি বিয়ের সাথে জড়িয়ে থাকে ভালোবাসা, পরস্পরের প্রতি বিশ্বাস এবং এক সাথে কাটিয়ে দেওয়া অনেক পুরনো সৃতি সহ বিভিন্ন বিষয়। আর তাই ইতালিতে যখন বিয়ের পর একজন দম্পতি ডিভোর্স নিয়ে টানা হেঁচড়া করে তখন আদালত তাদের এই কার্যক্রম সম্পন্ন হতে ৩ বছরের সময় দিয়ে থাকে। কারন আমরা অনেক সময় রাগের বশে এসে অনেক কঠিন সিদ্ধান্ত নিয়ে বসি। আর রাগের বশে কোন সিদ্ধান্তই সঠিক নয় সেই বিষয়টি আদালত অনেক ভালো করেই বোঝে। আর তাই আপনাদের ৩ বছরের সময় বেঁধে দেওয়া হয়। কেননা যখন আপনি ডিভোর্স চাওয়ার পর  আপনার স্বামী/স্ত্রীর সাথে আলাদা থাকবেন তখন আপনাদের একসাথে কাটিয়ে দেওয়া অতীতের পুরানো সৃতি গুলো নিয়ে ঠাণ্ডা মাথায় পুনরায় চিন্তা করতে পারবেন। এবং এভাবে দুই পক্ষই তাদের দোষ ত্রুটি সহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে সঠিক একটি সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে পারবেন। আবার অনেক সময় দেখা যায় আপনার স্বামী/স্ত্রির সাথে চূড়ান্ত পর্যায়ের ডিভোর্সের রায় পাওয়ার আগে, আলাদা থাকা অবস্থা আপনি নতুন সঙ্গির সাথে জীবন যাপন করার সময়ও তাদের দুইজনের মধ্যে কম্পেয়ার করে দেখতে পারবেন। আর তাই এরকম আরও অনেক বিষয় রয়েছে। যার উপর নির্ভর করে আপনাকে ইতালিতে বিবাহ বিচ্ছেদ করাতে হলে দীর্ঘ তিন বছর অপেক্ষা করতে হবে।

এবার আসি আমাদের টিপস।

প্রশ্নঃ যদি আমি বাংলাদেশে গিয়ে ডিভোর্স সম্পন্ন করাতে চাই তাহলে আমার করনীয় কি?

উত্তরঃ ইতালিতে পরিবার নিয়ে বববাস কারী দম্পতির জন্যে বিবাহ বিচ্ছেদ করার বিষয়টি বাংলাদেশে অনেকে দ্রুত সম্পন্ন করা যায়। এই ক্ষেত্রে আপনাকে যা যা করতে হবে?

স্বামী/স্ত্রির যেকোনো একজনকে দেশে যেতে হবে। সেখানে গিয়ে স্বামী/স্ত্রীর ঠিকানায় উকিল নোটিশ পাঠাতে হবে রেজিস্ট্রি করে পোস্ট এর মাধ্যমে। এবং তার পর থেকে তিন মাস অপেক্ষা করতে হবে। যদি তিন মাসের মধ্যে উত্তর পাওয়া যায় তাহলে ভালো, অন্যথায় উত্তর না এলে সেই উকিল নোটিশ এর একটি কপি নিয়ে স্থানীও নির্দিষ্ট কাজি অফিসে যেতে হবে। এবং সেই উকিল নোটিশ দেখাতে হবে। তখন কাজি অফিস থেকে স্বামী/স্ত্রীর ঠিকানায় বা ফোন নাম্বারে যোগাযোগ করা হবে। এবং এভাবে যদি কোন উত্তর না আসে, তাহলে কাজি অফিসেও আরও তিন মাস পর তারা আপনাকে চূড়ান্ত তালাক নামা বুঝিয়ে দিবে। এবং সেই তালাকনামার অরিজিনাল কপি আপনাকে ইতালিয়ান ভাষায় রুপান্তরিও করে নোটারি ও বৈধকরণ করা সহ বিভিন্ন সিল সপ্পর মেরে ইতালিতে এনে কমুনিতে জমা দিয়ে আপনার নাম থেকে আপনার স্বামী/স্ত্রীর নাম আলাদা করিয়ে নিতে হবে। তবে ইতালিয়ান ভাষায় রুপান্তরিত করার এই বিষয়টি আপনি চাইলে ইতালিতে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাস থেকেও করিয়ে নিতে পারেন। বন্ধূরা আসা করি আপনাদের বুঝাতে পেরেছি। তার মানে আমরা এখানে বুঝলাম, ইতালির তুলনায় দেশে গিয়ে এই কাজ করতে আপনার সর্বমোট সময় লাগছে ৬ মাস।

প্রশ্নঃ ভাই আমার চূড়ান্ত ডিভোর্স হওয়ার কতো দিন পর পুনরায় আবার বিয়ে করতে পারবো।

উত্তরঃ দেশে বিবাহ বিচ্ছেদ সম্পন্ন হওয়ার ৬ মাস পর আপনি আবার পুনরায় বিয়ে করতে পারবেন। এবং আবার আপনার নতুন স্ত্রী কে ইতালি নিয়ে আসতে পারবেন। মানে আপনার টোটাল ১ বছর অপেক্ষা করতে হবে।

যদি কারো মনে এই বিষয় নিয়ে কোন প্রশ্ন থেকে থাকে। তাহলে সরাসরি আমাদের টিম এর সাথে যোগাযোগ করে জেনে নিতে পারেন। আর আমাদের সাথে যোগাযোগ করার বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুণ।

আর যারা আপনাদের ফেসবুকে আমাদের সাইটের প্রতিটি লেখা পেতে চান তারা এখানে ক্লিক করে আমাদের অফিশিয়াল ফেসবুক পেজে গিয়ে লাইক দিয়ে রাখতে পারেন। তাহলে আমিওপারিতে প্রকাশিত প্রতিটি লেখা আপনার ফেসবুক নিউজ ফিডে পেয়ে যাবেন। ধন্যবাদ।

*****লেখাটি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুণ!*****

View all contributions by

আমিওপারি নিয়ে আপনাদের সেবায় নিয়োজিত একজন সাধারণ মানুষ। যদি কোন বিশেষ প্রয়োজন হয় তাহলে আমাকে ফেসবুকে পাবেন এই লিঙ্কে https://www.facebook.com/lesar.hm

Subscribe To Our Newsletter

আপনার পক্ষে কি প্রতিদিন আমাদের সাইটে আসা সম্ভব হয় না? তাহলে আপনি আমাদের ইমেইল নিউজলেটার সাবসক্রাইব করতে পারেন। এর মাধ্যমে আমাদের নতুন কোনো পোষ্ট করলে আপনি স্বয়ংক্রিয়ভাবে তার সন্ধান পেয়ে যাবেন আপনার নিজের ইমেইলের ইনবক্সে।

{ 1 comment… add one }
  • Salim December 7, 2014, 2:25 am

    I want to buye Resturent( fastfood) in Rome termine, How am possible to find? After buye am i possible to get any advantage from Bank . Please kindly inform me in my mail. Thank you And Salaam to ami dot com.

Leave a Comment

alexa toolbar

Get our toolbar!

সর্ব কালের ৮ জন সেরা লেখক

    সর্বাধিক পঠিত

    Popular Posts

    আমাদের সম্পর্কে | যোগাযোগ | সাইট ম্যাপ

    কপিরাইট ©২০১১-২০২০ । আমিওপারি ডট কম

    পূর্ব অনুমতি ব্যতিরেকে কোনো লেখা বা মন্তব্য আংশিক বা পূর্ণভাবে অন্য কোন ওয়েবসাইট বা মিডিয়াতে প্রকাশ করা যাবে না।

    ডিজাইন এবং ডেভেলপঃ

    Amiopari.com